পরিচিতি

১৯৮৪ সালে প্রশাসনিক পুনর্গঠনের মাধ্যমে ফেনী জেলা গঠিত হবার পর ১৯৮৫ সালের ৪ঠা জানুয়ারী ঢাকাস্থ ইনস্যুরেন্স একাডেমী মিলনায়তনে ঢাকাস্থ ফেনীবাসীদের সমাবেশে মরহুম ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান এর আহ্বানে ফেনী জেলা সমিতি ঢাকা’র প্রথম আহবায়ক কমিটি গঠিত হয় । ১৯৮৫ সালের ৮ই নভেম্বর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে প্রথম কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠিত হয় । ১৯৮৬ সালে কমিটির প্রথম সভাপতি কফিল উদ্দিন এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মোশারফ হোসেন এর নেতৃত্বে এক দল সুদক্ষ সদস্যের হাত ধরে ফেনী সমিতি ঢাকার কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ফেনীর অনেক কৃতি সন্তানেরা । ধারাবাহিক ভাবে মেয়াদকাল অনুযায়ী পরবর্তী সকল সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের পরিচয় যাবে।

বর্তমানে ফেনী সমিতি ঢাকার সভাপতি হিসেবে শেখ আব্দুল্লাহ এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন শাহাদাত হোসেন সেলিম । এছাড়া বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদে ৪৯ জনের একটা উদ্যমী ও পরিশ্রমী সদস্যের দল নিষ্ঠার সাথে পালন করছেন নিজ নিজ দায়িত্ব।

সহ-সভাপতির দায়িত্বে আছেন-
যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছেন-
সাংগঠনিক ও সহ-সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন-

শপথ গ্রহন- সক্রিয় সদস্যেদের সরাসরি অংশগ্রহণে ভোট প্রদানের মাধ্যমে নির্বাচিত হয় প্রতিটি কার্যনির্বাহী কমিটি । এবং শপথ গ্রহনের মধ্য দিয়ে অর্পণ করা হয় কমিটির দায়িত্ব ।
কমিটির অভ্যন্তরিন আলোচনা সভার মধ্য ফেনী সমিতির যে কোন কার্যক্রম বা কর্মসূচি গ্রহন করা হয়।

লক্ষ্য ও উদ্যেশ্যের – ক, খ, গ, ঙ, ছ, ট
বর্তমান কমিটির কর্মকাণ্ড ও কর্মসুচি নিয়ে বর্ণনা করা হবে ৩ মিনিট-
– শিক্ষা বৃত্তি
– দুস্থদের ত্রান বিতরন
– সকল সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের বর্ণনা

ফেনী সমিতির সামাজিক কর্মকান্ডের মধ্যে রয়েছে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ফেনীর আলোচিত নুসরাত হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে একটানা মানবন্ধন, সংবাদ সম্মেলন এবং হত্যাকারীদের সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে আইনি লড়াইয়ে নুসরাতের পরিবারকে সহযোগিতা এবং বিভিন্ন মহলে শক্ত অবস্থান নিয়ে শেষ পর্যন্ত ন্যায় বিচার এনে দেয়ার মত মহৎ এবং প্রতিবাদী কর্মসূচি নিয়েছিল ফেনী সমিতি।